২০০৮ সালে তৃণমূলের ব্লক সভাপতি ছিল ছত্রধর,প্রকাশ্যে দাবি মমতার।

বর্তমান তৃণমূলের রাজ্য সম্পাদক ছত্রধর মাহাতোকে নিয়ে বিতর্ক চলছে বহুদিন ধরেই। ১১ বছর আগের বাম কর্মীকে খুন করার মামলা থেকে শুরু করে রাজধানী এক্সপ্রেস হাইজ্যাক ঘটনা, তদন্ত চলছে এখনো। তার পাশাপাশি বিরোধী দলগুলিও বারংবার নিশানা করেছে ছত্রধরকে।কিন্তু ছত্রধর বা তৃণমূলের শীর্ষ নেতৃত্ব কোনোরকম উচ্চবাচ্চ করেনি এই নিয়ে।
সম্প্রতি, বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ প্রকাশ্যেই ছত্রধর মাহাতোকে আহ্বান জানিয়েছিলেন বিজেপিতে যুক্ত হওয়ার জন্য। এবার সবার মুখ বন্ধ করে এদিন মেদিনীপুরের সভার মঞ্চে ছত্রধরকে নিয়ে উঠলেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা ব্যানার্জী।মঞ্চ থেকে তিনি স্পষ্টতই জানিয়ে দিলেন , ছত্রধর এবং তৃণমূল দীর্ঘদিন একসাথে আন্দোলন করে চলেছে , আর পরবর্তীকালেও এই আন্দোলন চলবে। মমতা আরো বলেন, তারা অতীত ভুলে যায়নি।যে আন্দোলন ২০০৮ সালে ছত্রধর শুরু করেছিল, তখন সেই আন্দোলন দমানোর জন্য ছত্রধকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল, মাওবাদী তকমা দেওয়া হয়েছিল।কিন্তু তাও আন্দোলন দমিয়ে রাখা যায়নি। পাশাপাশি তৃণমূল সুপ্রিমো বলেন, ২০০৮ সালেও ছত্রধর তৃণমূল ব্লক সভাপতি ছিল। আর মমতার এই বক্তব্য নিয়েই দাঁনা বেঁধেছে বিতর্ক। সেই সময়কালে ছত্রধর মাহাতো মূলত পরিচিত ছিলেন জনগণ স্বার্থরক্ষা কমিটির মুখপাত্র হিসেবে। আর সেই ছত্রধরকে কিভাবে তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা ব্যানার্জী তৃণমূল ব্লক সভাপতি বললেন তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে দলের অন্দরমহলেই।

Covid

Co