সংশোধনাগারেও ‘দুয়ারে সরকার’

আসন্ন বিধানসভা ভোটের আগে রাজ্যবাসীর কথা মাথায় রেখে ‘দুয়ারে সরকার’ কর্মসূচির ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। সারা রাজ্য জুড়েই ১ ডিসেম্বর থেকে শুরু হয়ে গেছে এই অভিনব কর্মসূচি। যার সময়সীমা ৩০ জানুয়ারী অবধি। এই কর্মসূচির আওতায় সারা রাজ্যের সমস্ত গ্রাম পঞ্চায়েত ও পুরসভায় পুরোদমে চালু হয়ে গিয়েছে শিবির। আর এইবার আওতায় অন্তর্ভুক্তি হলো রাজ্যের সমস্ত সংশোধনাগার। অর্থাৎ , সংশোধনাগারে বন্দিরাও পাবেন স্বাস্থ্যসাথীর সুবিধা। এ বিষয়ে কারা দফতর থেকে চিঠির মাধ্যমে নির্দেশ পেয়েছেন জেলাশাসকরা , এমনটাই সূত্রের খবর। তবে বন্দিদের জন্য কিভাবে শিবিরের আয়োজন করা হবে এবং কবে থেকে এই প্রক্রিয়া শুরু হবে তা জেলা প্রশাসন ও সংশ্লিষ্ট সংশোধনাগারের কর্তৃপক্ষ মিলিতভাবে আলোচনার মাধ্যমে স্থির করবেন। সাধারণত , সংশোধনাগারে থাকাকালীন বন্দিরা সরকারি হাসপাতালেই চিকিৎসা করানোর সুবিধা পান। কেউ কেউ প্যারোলে বেরিয়ে বাইরে চিকিৎসা করানোর সুবিধা পান। তাদের জন্য স্বাস্থ্যসাথী কার্ড খুবই উপকারী হবে। প্রসঙ্গত ,রাজ্যের মোট ৬০ টি সংশোধনাগারে বিচারাধীন ও দণ্ডিত বন্দির সংখ্যা প্রায় ২৪ হাজার। কিন্তু তাদের মধ্যে যারা এই রাজ্যের বাসিন্দা তারাই কেবলমাত্র স্বাস্থসঠি প্রকল্পের সুবিধা পাবেন। যেসব বন্দিরা অন্য রাজ্যের বাসিন্দা তারা পাবেন না।

Covid

Co