বেহাল দশা মালদার হরিশ্চন্দ্রপুর গ্রামীণ হাসপাতালের আবাসনগুলির, তীব্র আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছেন চিকিৎসক সহ স্বাস্থ্যকর্মীরা

করোনা পরিস্থিতির মোকাবিলায় যারা নিজেদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে একেবারে সামনের সারিতে দাঁড়িয়ে লড়াই করেছেন তারা অবশ্যই ডাক্তার, নার্স এবং স্বাস্থ্যকর্মীরা তা বলাই বাহুল্য। অথচ তাদের বসবাসের জায়গার অবস্থাই অত্যন্ত অস্বাস্থ্যকর এবং বেহাল। দীর্ঘদিনের সংস্কারের অভাবে আবাসন গুলি এমনই বেহাল অবস্থায় ধুঁকছে যে দেখলে মনে হবে ভুতুড়ে বাড়ি। হ্যাঁ, ঠিক এমনটাই হচ্ছে ভয়ঙ্কর মালদা জেলার হরিশচন্দ্রপুরে, হরিশ্চন্দ্রপুর গ্রামীণ হাসপাতালের আবাসন গুলিতে। যেকোনো মুহূর্তে ছাদ বা দেওয়ালের চাঙর খসে পড়ে ঘটতে পারে দুর্ঘটনা।এমন মন্তব্য চারপাশের গজিয়ে ওঠা আগাছার জঙ্গলে বিষাক্ত সাপের ভয়ে এবং আবাসনের সীমানা পাঁচিল না থাকায়রাতের বেলায় দুষ্কৃতী হামলার ভয়ে আতঙ্কের মধ্যে কাটাতে হয় ঐসব আবাসনে বসবাসকারীদের। যখন-তখন ছাদ থেকে খসে পড়ছে চাঙর, আর বৃষ্টি হলেই ছাদ চুঁইয়ে জলে ভেসে যায় ঘরের ভেতরের অংশ। তেমনি জরাজীর্ণ দশা, দেখলে ওগুলি পরিত্যক্ত বাড়ি বলে ভুল হবে যেকোনো মানুষের। জানা গেছে, হাসপাতালের পাশেই চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীদের মোট ১১ টি আসন রয়েছে। যখন স্বাস্থ্য নিয়ে যারা সাধারণ মানুষের মধ্যে সচেতনতা বার্তা দেন,তাদেরই থাকতে হচ্ছে এই রকম অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে অথচ পাশেই হাসপাতালের নতুন ভবন হয়েছে বছর তিনেক আগে। স্বাস্থ্যকর্মীদের একাংশের অভিযোগ, তখনো এই আবাসনগুলোর সংস্কার এর উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। যদিও চিকিৎসক থেকে স্বাস্থ্যকর্মী কেউই এ বিষয়ে মুখ খুলতে চাননি।

https://youtu.be/5RQTpaFgtkY

Covid

Co