মুখ্যমন্ত্রী চা চক্রে যোগ না দেয়ায় ক্ষুব্ধ রাজ্যপাল।

নবান্ন তরফের আগেই বলা হয়েছিল বিকেলের চা চক্রে মুখ্যমন্ত্রী যোগ দিতে পারবেন না।রেড রোডের অনুষ্ঠান শেষ হওয়ার পরই গতকাল সকালেই রাজভবনে পৌঁছে যান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এক ঘণ্টারও বেশি সময় সেখানে থাকেন তিনি। পুষ্পস্তবক রাজ্যপাল জাগদীপ ধনকার এর হাতে তুলে দিয়ে তাকে স্বাধীনতা দিবসের শুভেচ্ছা জানান। কিন্তু এত কিছুর পরেও বিতর্ক তার পিছু ছাড়লো না। বিতর্ক উস্কে দিলেন রাজ্যপাল জাগদীপ ধনকার নিজেই।


প্রটোকল মেনে চা চক্রে মমতার জন্য আলাদা আসন রাখা ছিল। ফাকা আসনের ছবি পোস্ট করে গতকাল রাতে রাজ্যপাল টুইট করেন, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্য যে আসনটি রাখা হয়েছিল সেটি ফাঁকা এর থেকে বোঝা যাচ্ছে একটি অপ্রত্যাশিত পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে যেটি বাংলার সমৃদ্ধ সংস্কৃতি ও নৈতিকতায় খাপ খায় না।


কি লিখেছেন তিনি এই ব্যবহারে স্তম্ভিত এবংবাকরহিত। মুখ্যমন্ত্রী এবং তার প্রশাসনিক আধিকারিকরা খারাপ নজির করেছেন এবং সংবিধান মেনে না চলার আরো এক বেদনাদায়ক দৃষ্টান্ত।
কিন্তু পাল্টা প্রশ্ন, মুখ্যমন্ত্রী যে আসবেননা সেকথা নবান্ন তরফে অনেক আগেই রাজভবন কে জানানো হয়েছিল। এবং তার পরেও সকালবেলা মুখ্যমন্ত্রীর হঠাৎ রাজভবনে আসার পরেও রাজ্যপালের ফাঁকা চেয়ারের ছবি পোস্ট করে টুইট করা কি সত্যিই সৌজন্যমূলক?

Covid

Co