৪০ লাখ টাকা হাতানো অভিযুক্তকে গ্রেফতার করা হলো তেজপাতার স্তুপ থেকে।

সম্প্রতি কলকাতার হেয়ার স্ট্রেট থানা এলাকার একটি বেসরকারি সংস্থায় অভিযোগ জানিয়েছিল, সংস্থাটি এক কর্মী সংস্থার হয়ে টাকা সংগ্রহ করে সেই টাকা কম্পানিতে জমা না দিয়ে পলাতক হয়ে যান। অভিযুক্ত সেই কর্মী মার্কেট থেকে ৪০ লক্ষ টাকা সংগ্রহ করেছিলেন।
তদন্তে নেমে পুলিশ অভিযুক্ত দেবীপ্রসাদ এর দত্তপুকুর এর বাড়িতে তল্লাশি চালায়। কিন্তু তার খোঁজ পাওয়া যায়নি। এরপর পুলিশ অফিসাররা দেবীপ্রসাদ এর প্রেমিকার ফোনে আড়ি পাতে। দেখা যায় একটি অজানা নম্বর থেকে ঘনঘন ফোন আসছে তার প্রেমিকার। আর সেই ফোন নম্বর ট্র্যাক করেই পুলিশ গোবরডাঙ্গা থেকে দীপঙ্কর মজুমদার নামক এক ব্যক্তি কে গ্রেপ্তার করে। দীপঙ্কর বাবুকে জেরা করে জানা যায়, দেবীপ্রসাদ তার ফোনটি ব্যবহার করে তার প্রেমিকার সঙ্গে কথা বলছিল।
এরপরই খুঁজতে খুঁজতে গোবরডাঙ্গা রেল লাইনের ধারে একটি তেজপাতার স্তুপের মধ্যে খুঁজে পায় দেবীপ্রসাদ কে। খুঁজে পাওয়ার পরে দেবীপ্রসাদ পুলিশকে ধাক্কা মেরে রেললাইন ধরে ছুটতে থাকে। রাতের অন্ধকারে পুলিশকে রীতিমতো দৌড় করায় সে, তারপর শেষ পর্যন্ত পুলিশের হাতে ধরা পড়ে দেবীপ্রসাদ।
দেবীপ্রসাদ কে জেরা করে, গোবরডাঙ্গার একটি দোকান থেকে উদ্ধার করা হয় ৩২ লক্ষ টাকা।

Covid

Co