কলেজ থেকে অশরীরী আওয়াজ, আতঙ্কে অশোকনগরের বাদামতলা এলাকার বাসিন্দারা, সংবাদমাধ্যম যেতেই বন্ধ ভৌতিক শব্দ

অশোকনগরের নৈহাটি রোডের বাদামতলায় বেশ কিছু বছর আগে তৈরি হয় বেসরকারি জে এন পি কলেজ অফ এডুকেশন। দিব্য চলছিল পঠন-পাঠন, ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যাও কম নয়। কিন্তু মাস তিনেক ধরে করোণা প্রতিরোধে রাজ্যের অন্যান্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলির মত বন্ধ এই বেসরকারি কলেজটিও। গত দুদিন ধরে নাকি রাত হলেই কলেজের ভিতর থেকে শোনা যাচ্ছে মহিলা কন্ঠে গোঙানির আওয়াজ ,সাথে ড্রামের শব্দ। রাত যত বাড়ে, শব্দ ততো জোরালো হয়। সম্ভাব্য ভূতের ভয়ে কাবু স্থানীয় বাসিন্দাদের ডাকে সাড়া দিয়ে কলেজে আসেন অশোকনগর থানার পুলিশও। কলেজের নিরাপত্তাকর্মীদের সাথে নিয়ে তারা ভিতরে ঢুকেও নাকি পেতে থাকে সেই অচেনা ভৌতিক আওয়াজ। একেবারে ভোজপুরি ফিল্মের প্লট। অন্ধকার কলেজের বিশাল বিশাল ঘর, গা ছমছম করা পরিবেশ, তার উপরে আবার মহিলার আর্তনাদ। আহা, করোনাবন্দী মানুষের ঢল নামে কলেজ ঘিরে একটু ভূত দেখার বা শোনার আশায়। পৌঁছে যাই আমরাও। না, বিশ্বাস করুন সারারাত কলেজের ভিতরে ক্যামেরা তাক করেই নয়, অন করে বসে থেকেও আমরা দেখা পেলাম না কোন অশরীরী বা কোন ভৌতিক শব্দের। কিন্তু গ্রামের লোকজন শুনছেন এবং সেটা নাকি সেইই ২০১৭ সাল থেকেই। যেমনটা আমাদের জানালেন এক গ্রামবাসী পুষ্পা দত্ত। তবে ভয় কোনদিন দেখতে বার হননি। পুলিশের সাথে যখন ঢুকেছিলেন তখন শুনেছেন আরভৌতিক শব্দ, দাবি, পুলিশ কর্মীরাও নাকি শুনেছেন, কিন্তু আমাদের সাথে ঢোকার পর আর শোনেননি। আর কলেজের পক্ষ থেকে যেটা জানানো হলো সেটা অবশ্য আমরাও দেখেছি। ছাদের আমফান ক্ষতিগ্রস্ত একটি ঘরের থেকে উদ্ধার হওয়া একটি মৃত পেঁচা। তাদের দাবি কোনভাবে পেঁচাটি ঘরে ঢুকে বন্দী অবস্থায় খিদে, তৃষ্ণায় চিৎকার করত, সেই আওয়াজই শুনেছেন গ্রামের লোকজন। তবে শেষ বেলায় এক জন গ্রামবাসী যেটা বললেন,যে কলেজ বন্ধ করে দেবার একটি চক্রও নাকি কাজ করছে গ্রামে, সে অভিযোগ উড়িয়ে দেবার মত নয়। পশ্চিমবঙ্গ বিজ্ঞান মঞ্চের পক্ষে দেবব্রত ঘোষের কথাতেও কোন চক্রান্তের ইঙ্গিত স্পষ্ট। তবে আমাদের দুঃখ রয়েই গেল ভূত না দেখতে পাবার। আসলে যেটার কোন অস্তিত্বই নেই বাস্তবে, সেটা তো আর দেখা সম্ভব নয়। তবে যেটা দেখার জন্য আমরা অপেক্ষা করে আছি, কে বা কারা এবং কী উদ্দেশ্যে ওই শব্দ তৈরি করে গ্রামবাসীদের ভয় দেখাচ্ছে সেটাই। আমরা আশাবাদী অচিরেই সেই মানব ভূতকেও আমরা আপনাদের সামনে নিয়ে আসব।

https://youtu.be/gZiSYvPCVrQ

Covid

Co