বেলা বারোটা বাজতেই লকডাউন বলবৎ করতে তৎপর বেলঘড়িয়া থানার পুলিশ, প্রশ্নের মুখে মাস্কহীন পুলিশ অফিসার

গত ২০শে মার্চ থেকে কোভিদ মোকাবিলায় কামারহাটি পৌরসভার সমস্ত দোকানপাট, মানুষজন ও যানবাহন চডলাচলের ওপর বেলা বারোটা থেকে কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণের কথা ঘোষণা করেছে কামারহাটি পৌরসভা ও বেলঘড়িয়া থানা কর্তৃপক্ষ। আর ২২ শে জুলাই থেকে সে নিয়ম কার্যকর করার ক্ষেত্রে দারুন সক্রিয় ভূমিকায় দেখা গেল পুলিশকর্মীদের। বেলা বারোটার পর খোলা দোকান গুলির ছবি তুলে তাদের বিরুদ্ধে মহামারি প্রতিরোধ আইনে মামলা দায়ের করার কথাও শোনা গেল কর্তব্যরত পুলিশ অফিসারের মুখে।
সবটাই বোঝা গেল মানুষের স্বার্থে করা হচ্ছে, যাতে করো না মহামারী ছড়িয়ে না পড়ে, ভেঙে দেওয়া যেতে পারে কোভিদ ভাইরাসের শৃংখল কে। কিন্তু নিন্দুকের একটা প্রশ্ন আছে এক্ষেত্রে, যে নীল জিনস এবং সবুজ জামা পরিহিত পুলিশ অফিসারের নেতৃত্বে ১২ টার পরেও খোলা দোকানগুলিতে হানা দিচ্ছিল পুলিশকর্মীরা, তিনি কি দেবদূত? নাকি তিনি ইতিমধ্যেই পেয়ে গেছেন করণার ভ্যাকসিন, নাহলে মুখে মাস্ক না পড়ে প্রকাশ্য রাস্তায় বার হওয়ার জন্য তার বিরুদ্ধেও তো অতি ভারী প্রতিরোধ আইনে মামলা হওয়া উচিত, কারণ তিনিও তো আইন রক্ষা করতে গিয়ে আইন ভাঙছেন ক্যামেরার সামনে। আর যেখানে প্রতিদিন বিভিন্ন থানা থেকে খবর আসছে পুলিশ কর্মীরাও ব্যাপকহারে আক্রান্ত হচ্ছেন করোণায় , তখন কি এই অফিসারের কাছ থেকে এতোটুকু সাবধানতার নির্দেশ পালন আশা করতে পারে না নিন্দুক মানুষজন!!

https://youtu.be/K90Yu9UACp8

Covid

Co