এম্বুলেন্স না পেয়ে করোনা আক্রান্ত এক যুবকের মৃত্যুর অভিযোগে তীব্র চাঞ্চল্য লিলুয়ার গুহ পার্কে

২২ শে জুলাই করোনার উপসর্গ নিয়ে একসাথে সরকারি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলো হাওড়ার লিলুয়া গুহ পার্ক এলাকার বাসিন্দা সন্তোষ হরিজন ও তার বাবা রাজকুমার হরিজন। দুদিন বাদে সন্তোষের উপসর্গ কমে যাবার ফলে তাকে ছুটি দিয়ে দেয় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। পরামর্শ দেয় বাড়িতে রেখে চিকিৎসা করার। কিন্তু হঠাৎ করেই গতরাতে সে মারাত্মক অসুস্থ হয়ে পড়ে। তীব্র শ্বাসকষ্ট হচ্ছে দেখে রাত তিনটে থেকে বাড়ির লোকজনেরা হাসপাতাল, হাওড়া কর্পোরেশন, লিলুয়া থানা, বিভিন্ন অ্যাম্বুলেন্স পরিষেবায় ফোন করেও কোন সহযোগিতা পাননি বলে অভিযোগ। হাসপাতাল থেকে জানানো হয় ‘কোন সিট খালি নেই’।

পুলিশ কোনো উদ্যোগ নেয়নি, আর কর্পোরেশন থেকেও জানানো হয় অ্যাম্বুলেন্স নেই। শেষ পর্যন্ত তীব্র শ্বাসকষ্টে আজ সকাল সাতটা নাগাদ মৃত্যু হয় সন্তোষ হরিজনের। তারপরেও দীর্ঘ পাঁচ ছয় ঘণ্টা কেটে গেলেও মেলেনি কোন সরকারি সহযোগিতা। এমনটাই অভিযোগ পরিবারের লোকজনের। ঘটনাটি ঘিরে তীব্র চাঞ্চল্য ছড়ায় এলাকায়। তবে এ ঘটনা স্বীকার করতে চাইনি হাওড়া কর্পোরেশন বা লিলুয়া থানা কর্তৃপক্ষ। জানানো হয়েছে তাদের সাথে কেউই যোগাযোগ করেনি, বেলায় মৃত্যুর সংবাদ পেতেই তারা উদ্যোগী হয়ে মৃতদেহ নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করেছেন।তবে যে অভিযোগ উঠে এলো পরিবারের পক্ষ থেকে, তাতে রাজ্য স্বাস্থ্য ব্যবস্থার নড়বড়ে অবস্থাটা ফের একবার প্রকাশ্যে চলে এলো বলেই জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞ মহল।

https://youtu.be/cWjX0jCCAzU

Covid

Co