‘নিউ নর্মাল’ অনলাইন ক্লাস, অভাব- আত্মহত্যা এক পড়ুয়ার।

দেশে করোনার প্রকোপ বাড়ার সাথে সাথে, সাধারণ মানুষের আর্থিক অবস্থাও যে বেশ সংকটজনক তার প্রমাণ মিলছে বারংবার।
করনা পরবর্তী সময়ে পড়াশুনার ক্ষেত্রে ‘নিউ নর্মাল’ হল অনলাইন ক্লাস, যা করার জন্য একটি স্মার্টফোন এবং ইন্টারনেট পরিষেবা আবশ্যকীয়।
তামিলনাড়ুর কুদ্দালোরে ১৪ বছরের এক কিশোর শহরেরই এক হাইস্কুলের পড়ুয়া, লকডাউন এর পর থেকেই স্কুল থেকে অনলাইন ক্লাস চলছে।
পড়ুয়ার বাবা কাজু বাদামের চাষ করেন। করোনা এবং লকডাউন পরবর্তী পরিস্থিতিতে ব্যবসায় মন্দা, হাতে নগদ টাকা নেই।
কিছুদিন ধরেই পড়ুয়া টি বাবার কাছে স্মার্টফোন চাইছিল অনলাইন ক্লাস করবে বলে।ছেলেকে বলেছিলেন কিছুদিন পর হাতে টাকা এলে ওকে ফোন কিনে দেবেন। এতেই রাগে ক্ষোভে আত্মঘাতী হলো দশম শ্রেণীর পড়ুয়া।


এই ঘটনা থেকে এটা স্পষ্ট আর্থিক ভাবে পিছিয়ে পড়া পরিবারগুলির ক্ষেত্রে একটি স্মার্টফোন যোগাড় করাও কতটা অসুবিধার ।
এক শিক্ষাবিদের কথায় , এখন দেশের অর্থনীতির যা অবস্থা, তাতে গরিব পরিবারের স্মার্টফোন এবং ইন্টারনেট পরিষেবা নেওয়া একপ্রকার অসম্ভব।

Covid

Co