কোনো সোস্যাল মিডিয়া ব্যাবহার করতে পারবেন না সেনারা : নির্দেশ বহাল হাই কোর্টের।

ফেসবুক ইনস্টাগ্রাম এর মত সোশ্যাল মিডিয়া সাইটগুলি থেকে সেনাদের সরে আসার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল গত ৬ জুন। সেনার লেফটেন্যান্ট কর্নেল পিকে চৌধরী সেই সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের আরজি জানিয়ে হাইকোর্টে মামলা করেন। কিন্তু সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারের ওপর নিষেধাজ্ঞা বহাল রাখল দিল্লি হাইকোর্ট। প্রায় ৮৯ টি অ্যাপ বন্ধ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল।


পিকে চৌধরীর দাবী, সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে পরিবার এবং বন্ধুদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখতে পারেন সেনাবাহিনীর সদস্যরা, তাতে যেমন শারীরিক দূরত্ব টাও মেটে তেমনি মানসিক চাপ অনেক কমে।
কিন্তু সেনার তরফ থেকে জানানো হয়েছে সেনাবাহিনীর গোপন ও স্পর্শ কাতর খবর জোগাড়ের জন্য হানিট্রাপের ঘটনাই সাম্প্রতিক সময়ে বারবার সামনে এসেছে। যার অধিকাংশ ক্ষেত্রেই সোশ্যাল মিডিয়াকে ব্যবহার করা হয়েছে। সেই আশঙ্কাতেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানা যাচ্ছে।
পাল্টা চৌধরীর যুক্তি, সোনার তরফ থেকে জানানো হয়নি হানিট্রাপের ঘটনা ঠিক কতটা বেড়েছে। বিদেশের সেনাবাহিনীতেও এই সমস্ত ঘটনা ঘটেই থাকে কিন্তু সেখানে এইরকম কোন পদক্ষেপ নেওয়া হয় না। এ সিদ্ধান্ত সেনাসদস্যদের মৌলিক অধিকার হরণ করছে।

Covid

Co