সোদপুর ট্রাফিক গার্ডের ওসি রামপ্রসাদ মন্ডলের উদ্যোগে আয়োজিত হল রাখি বন্ধনের সাথে সাথে হলো মাস্ক বন্ধনও

১৯১১ সালে লর্ড কার্জনের বঙ্গভঙ্গ প্রস্তাবের বিরোধিতায় ভারতের একমাত্র সাংস্কৃতিক আন্দোলন দেখেছিল তৎকালীন দেশবাসী। কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর-এর নেতৃত্বে লক্ষ্য লক্ষ্য ভিন্ন ভিন্ন সম্প্রদায়ের মানুষ একে অপরের হাতে রাখি পরিয়ে দিয়ে শপথ নিয়েছিলেন বাংলাকে অবিভক্ত রাখার। যদিও সেই দিনটিতে রাখি পূর্ণিমা ছিল না। গুরুদেবের সেই রাখি বন্ধন আন্দোলনে পিছু হঠেছিল ব্রিটিশ সরকার। সরে এসেছিলো বঙ্গভঙ্গের প্রস্তাব থেকে। সেই আন্দোলনকে মাথায় রেখে বর্তমান রাজ্য সরকার রাখি পূর্ণিমার দিনটিকে বিশেষ সামাজিক উৎসবের দিন হিসেবে গণ্য করে পালন করে গণ রাখি বন্ধন উৎসব, যার অন্যথা হলো না এবারেও।

তবে যোগ হলো নতুন মাত্রা। করোনা আবহে রাখি বন্ধনের সাথে সাথে হলো মাস্ক বন্ধনও। এদিন ব্যারাকপুর পুলিশ কমিশনারেটের সোদপুর ট্রাফিক গার্ডের ওসি রামপ্রসাদ মন্ডলের উদ্যোগে আয়োজিত রাখি ও মাস্ক বন্ধন উৎসবে হাজির ছিলেন ডিসি ট্রাফিক বিশ্বজিৎ মাহাতো সহ অন্যান্য পুলিশকর্তারা। ডিসি ট্রাফিক নিজে রাস্তায় নেমে সাধারণ মানুষ ও গাড়ির চালকদের হাতে পড়িয়ে দিলেন রাখি, তুলে দিলেন মাস্ক।

Covid

Co