বিশ্বভারতীর শতবর্ষ অনুষ্ঠানে নাকি আমন্ত্রণই করা হয়নি মুখ্যমন্ত্রীকে, দাবি তৃণমূলের শীর্ষ নেতৃত্বের।

এবার বিশ্বভারতীর শতবর্ষ অনুষ্ঠানেও লাগলো রাজনীতির ছোঁয়া। আজ বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের ১০০ তম প্রতিষ্ঠাদিবস।আর সেই উপলক্ষে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে। আজ,সশরীরে আমন্ত্রণ রক্ষা না করতে পারলেও ভার্চুয়ালি তিনি যোগদান করেছিলেন অনুষ্ঠানে।
কিন্তু তৃণমূলের শীর্ষ নেতৃত্ব দাবি করেন, বিশ্বভারতীর শতবর্ষ অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি খোদ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জীকে। আজ একটি সাংবাদিক বৈঠকে উপস্থিত হয়ে ঠিক এমনটাই দাবি করেন ব্রাত্য বসু। তিনি বলেন, রাজ্যের এমন একটি গৌরবময় অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানো হলোনা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকেই,কি এমন কারণ রয়েছে যার জন্য মমতা ব্যানার্জী কে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি?
কিন্তু এই সব ঘটনার মধ্যেই সামনে এসেছে একটি চিঠি।যে চিঠিটি বিশ্বভারতীর প্যাডে লেখা ৮ ডিসেম্বরের এবং চিঠিটি লেখা হয়েছে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী এর উদ্দেশ্যে তাকে আজকের দিনে আমন্ত্রণ জানিয়ে। এবার এই চিঠিটি নিয়ে ব্রাত্য বসুকে প্রশ্ন করা হলে তিনি পাল্টা প্রশ্ন করেন ,ওই চিঠিটির কোনো প্রাপ্তিস্বীকার আছে কি?ওই চিঠিটিকে প্রাপ্তিস্বীকার করা হয়েছিল কিনা তা তিনি বারংবার জানতে চান! কিন্তু এই প্রশ্নের কোনো সদুত্তর মেলেনি।
প্রথমত, দিনকয়েক আগে অমিত শাহ এসেছিলেন বোলপুরে,গিয়েছিলেন বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে।তখন থেকেই শুরু হয় বিতর্ক।তারপর আজ প্রধানমন্ত্রী আমন্ত্রণ পেলেও আমন্ত্রণ পেলেন না খোদ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী,আর তাতেই গৌরবময় এই দিনটির গায়ে লেগে গেলো রাজনীতির রঙের ছোঁয়া।
যদিও সকাল সকাল বিশ্বভারতীর শতবর্ষ উপলক্ষে একটি টুইট করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী।

Covid

Co