দলীয় কর্মসূচীতে অংশ নেবার সময়ে খুন হওয়া বিজেপি কর্মীর স্ত্রীকে সরকারী চাকরী দিলো রাজ্য সরকার

গত ১২ ডিসেম্বর ২০২০ বিজেপির ‘গৃহ সম্পর্ক’ অভিযান চলাকালীন তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীদের হাতে নৃশংসভাবে খুন হয়েছিলো হালিশহরের ৪২ নম্বর বুথের বিজেপি সভাপতি সৈকত ভাওয়াল। ঘটনাটি ঘিরে উত্তাল হয়েছিলো রাজ্য রাজনীতি।দলীয় কর্মীকে খুনের প্রতিবাদে মৃতের বাড়িতে দেখা গেছে বিজেপির একাধিক শীর্ষ নেতাকেও। আর এবার সেই ঘটনায় নতুন মাত্রা যোগ করল অভিযুক্ত রাজ্যের শাসক দল। মৃত সৈকতের স্ত্রীকে, তার নৈহাটীর উত্তর প্রসাদ নগর এলাকার বাপের বাড়িতে পৌঁছে দমকল বিভাগে চাকরীর ব্যবস্থা করে দিলো রাজ্য সরকার।এদিন দুপুরে মৃতের স্ত্রীর সাথে দেখা করেন নৈহাটীর তৃণমূল বিধায়ক পার্থ ভৌমিক সহ অধিকারী, তৃণাঙ্কুর ভট্টাচার্য প্রমুখ নেতারা। মৃত বিজেপি নেতা সৈকতের স্ত্রীর হাতে তুলে দেওয়া হয় দমকল বিভাগের নিয়োগ পত্র। আর তারপর বিধায়ক পার্থ ভৌমিক বলেন, সম্পূর্ণ মানবিক কারণে এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে, এর পিছনে কোন রাজনৈতিক অভিসন্ধি নেই। সৈকতের ভাইকেও যাতে হালিশহর পৌরসভায় চাকরি দেওয়া হয় তার ব্যবস্থাও করা হচ্ছে।
তবে নিহত বিজেপি নেতার মা জ্যোৎস্না ভাওয়াল সটান জানিয়ে দিলেন তার কাছে এ বিষয়ে কোনো খবর নেই, কারণ তার নিহত ছেলের বউ এখন তার সাথে কোন যোগাযোগ রাখে না, বাপের বাড়িতে বসে সে তার মতো ঘুঁটি সাজাচ্ছে, আর এই চাকরীর বিষয়টিতে তার কোনোভাবেই সমর্থন নেই।
সত্য সেলুকাস কি বিচিত্র এই দেশ, যেখানে একটি খুনের পর খুনীদের বিচারের চাইতে বেশী গুরুত্ব পায় রাজনীতি, যে কারণে আমরা আপনাদের আর জানাচ্ছি না বিজেপি রাজ্য সহ-সভাপতি, সাংসদ অর্জুন সিং ঠিক কি যুক্তি খাড়া করেছেন এ বিষয়ে।

Covid

Co