পণের দাবিতে শারীরিক এবং মানসিক অত্যাচার, অভিযোগ দায়ের তরুণীর।

২০১২ সালের ডিসেম্বরে বিয়ে হয় অভিযোগকারী তরুনীর। তারপর স্বামী, শ্বশুর-শাশুড়ি সহ শ্বশুরবাড়ির লোকজন অত্যাচার শুরু করে তরুনীর ওপর। শ্বশুরবাড়ির লোকজনের দাবি ছিল , তরুণীকে বাপের বাড়ি থেকে প্রচুর পরিমাণে পণ আনতে হবে। কিন্তু তা না হওয়ায় শারীরিক এবং মানসিক অত্যাচারের পরিমাণ বাড়তে থাকে। ‌
চলতি বছরের জুলাই মাসে তরুনীর সব গয়না কেড়ে নিয়ে তাকে এক কাপড়ে শ্বশুর বাড়ি থেকে বের করে দেওয়া হয়।
এদিন তরুণী পুলিশে অভিযোগ জানালে, পুলিশ তদন্ত শুরু করেছে।

Covid

Co